সোনাগাজীর আমিরাবাদে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানের উপর হামলা আহত ২

ফেনীর সোনাগাজীর আমিরাবাদ ইউনিয়নের সোনাপুর রিয়াজ উদ্দিন মাতাব্বর বাডির বীর মুক্তিযোদ্ধা রসুল আহমদের ছেলে ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল্যাহ রিংকুর বড়ভাই সৌদিআরব অবস্থানরত ইমাম হোসেন রুবেলের উপর বার বার হামলা করে একই বাডির মৃত মোস্তফা মিয়ার ছেলে প্রবাসী জসিম উদ্দিন ও ভাগিনা সোহেল।

গত কিছুদিন আগে জসিম উদ্দিন ও রুবেল দেশে আসলেও তাদের মাঝে কয়েকবার মারামারি হলে ইমামের মাতা ফুলেরা বেগম বাদি হয়ে সোনাগাজী মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। পরে থানার এস আই নওশের বিষয়টি সমাধান করা চেষ্টা করলে জসিম গংরা সমাধানে আসেনি।

এরই জেরে গত ২৩ জুলাই রাতে বিদেশরত অবস্থায় ইমাম হোসেন রুবেলকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে মারাত্মক জখম করে জসিম উদ্দিন ও সোহেল বাহিনীরা। সেই সূত্রধরে গত কিছুদিন দেশে উভয় পরিবারের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করেছে ২৬ জুলাই সকালে রুবেলের ভাই রফিকুল ইসলাম জমিতে কাজ করতে গেলে সেখানে জসিমের ভাই ভুট্টু গিয়ে উভয়ের মধ্যে কথাকাটি এক পর্যায়ে মারামারি হয় এতে রফিকুল ইসলাম ও ভুট্টু দুজনেই আহত হয়। রফিক ইসলাম বর্তমানে চট্রগ্রামে একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন এবং ভুট্টু ফেনী সদর হাসপাতালে চিকিৎসা রয়েছে। মুক্তিযোদ্ধা রসুল আহমদ জানান, আমার ছেলে রুবেলকে সৌদিআরব ৪ বার হামলা করেছে জসিম এবং দেশে এসেও গত ২মাস আগে সোনাপুর বাজারে আমার ছেলে রিংকুর দোকানে হামলা করে জসিম উদ্দিন, শেখ, ভুট্ট, ওজিউল্লাহ, ওবায়দল হক সহ ১০/১৫ জন।

সেই ঘটনা সোনাগাজী থানার মাধ্যম সমাধানের চেষ্টা করলে তারা সমাধানে আসেনি তারপরও আমরা নিশ্চুপ ছিলাম কিন্তু গত ২৩ জুলাই তারিখে জসিম উদ্দিন ফের প্রবাসে সৌদিআরবে আমার ছেলে ইমাম হোসেন রুবেলকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে গুরুত্বর আহত করে। এই ব্যাপারে ভুট্টুদের পরিবারের সাথে বক্তব্যের জন্য যোগাযোগের চেষ্টা করলে তাদেরকে পাওয়া যায়নি। সোনাগাজী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ সাজেদুল ইসলাম জানান, সোনাপুরে ঘটনায় উভয় পক্ষের আমরা অভিযোগ পেয়েছি তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আজকের বাংলাদেশ/সোনাগাজী প্রতিনিধি/সালাউদ্দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *